ইমেইল মার্কেটিং: কী, কেন, কীভাবে

অনলাইনে অর্থ উপার্জনের নানান উপায়ের মধ্যে ইমেইল মার্কেটিং অন্যতম। আমেরিকা ও ইউরোপীয়ান দেশগুলোতে ব্যাপক জনপ্রিয় এ প্রক্রিয়াটি ধীরে বাংলাদেশ সহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। মূলত ইমেইলের মাধ্যমে টার্গেটেড বা নির্ধারিত ক্রেতা শ্রেণির কাছে পণ্যের প্রচারণা পৌঁছে দেয়াই হলো ইমেইল মার্কেটিং।

Image Source: bloghotmart.com

ইমেইল মার্কেটিংয়ের লক্ষ্য হলো বাজারে আসা নতুন পণ্য, বিশেষ ছাড়, নতুন ব্রাঞ্চ উদ্বোধন, নতুন কোনো সেবা চালু করার মতো বিষয়গুলো ক্রেতাদের জানিয়ে দেয়া। এতে করে ক্রেতাদের ঐ পণ্য বা ব্র্যান্ডের প্রতি বিশ্বাসযোগ্যতা এবং আকর্ষণ, দুইই বাড়ে।

নীচে সফল ইমেইল মার্কেটিংয়ের ধাপগুলো বর্ণনা করা হলো।

টার্গেটেড লিস্ট তৈরি করুন

ইমেইল মার্কেটিংয়ের প্রথম ধাপ হলো টার্গেটেড লিস্ট বা নির্দিষ্ট শ্রেণির ইমেইলের তালিকা তৈরি করা। কিন্তু সমস্যা হলো, আপনার ওয়েবসাইটের অধিকাংশ পাঠকই সাবস্ক্রাইবার হতে আগ্রহী হবেন না। এক্ষেত্রে সাইটে স্থায়ী সাবস্ক্রাইবারের অপশন রাখার পাশাপাশি সবচেয়ে জনপ্রিয় সেকশনগুলোর জন্য ‘এক্সিট ইনটেন্ট’ পপআপের ব্যবস্থা করতে পারেন।

এক্সিট ইনটেন্ট পপআপ বলতে বোঝায় যখন কোনো পাঠক পেইজটি থেকে বের হয়ে যেতে চান, তখন ইউজার স্ক্রিনে সাবস্ক্রিপশনের বারটি পপআপ করা। মূলত পাঠক যদি লেখা বা কনটেন্ট পছন্দ করেন, তাহলে শেষ মুহূর্তে নিয়মিত আপডেট পাবার লোভে সাবসক্রাইব করেও ফেলতে পারেন। ফলে, এ প্রক্রিয়ায় দ্রুতই একটি টার্গেটেড শ্রেণির পাঠককে সম্ভাব্য ক্রেতায় পরিণত করা যায়, যাদের কাছে ইমেইলের মাধ্যমে পৌঁছানো হবে বিজ্ঞাপন।

লক্ষ্য নির্ধারণ করুন

লক্ষ্য নির্ধারণ করুন; Image Source: udemycdn.com

ইমেইলের তালিকা দিয়ে কি করবেন সে লক্ষ্য আগেভাগেই ঠিক করে ফেলুন। ইমেইলের তালিকা দিয়ে যে কাজগুলো করতে পারন-

  • সাইটের সাবসক্রাইবার বৃদ্ধি এবং কেবল সাইটের প্রচারণা
  • সাইটের মাধ্যমে প্রাপ্ত সাবসক্রাইবারদের নিকট পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রেরণ
  • পুরনো সাবসক্রাইবারদেরই ধরে রাখা এবং নিয়মিত করা
  • অনেকদিন পর পর নিষ্ক্রিয় সাবসক্রাইবারদের সাইট সম্বন্ধে স্মরণ করিয়ে দেয়া।

মেইল লিখে ফেলুন

নিজের লক্ষ্য ও মোটামুটি একটি তালিকা তৈরি হয়ে গেলে এবার সব রকমের পাঠক ও ক্রেতার কথা মাথায় রেখে একটি সংক্ষিপ্ত ম্যাসেজ লিখে ফেলুন যেটি আপনি মেইল আকারে প্রেরণ করবেন। মেইল লেখার সময় অবশ্যই শিরোনামে গুরুত্ব দিতে হবে। কেননা, ভালো শিরোনাম না হলে পাঠক মেইলটি খুলে নাও দেখতে পারেন! মেইলটি কোন বিষয়ে লিখছেন সেটি যেন অবশ্যই উল্লেখ থাকে শিরোনামে।

Image Source: ionos.com

শিরোনাম লেখা হয়ে গেলে মূল মেইলটি লেখার ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম অনুসরণ করতে পারেন। লেখায় প্রাপকের নাম উল্লেখ থাকলে প্রাপক সেটি পড়তে অধিক ভালোবাসবেন। লেখাটি অবশ্যই সংক্ষিপ্ত এবং শক্তিশালী হতে হবে। বাক্যগঠনে সাবধানী হতে হবে, ছোট ছোট বাক্যে লিখতে হবে। যেকোনো অপ্রয়োজনীয় কথা বাদ দিয়ে কেবল মূল বিষয়ের উপর ভিত্তি করে পুরো মেইলটি লিখতে হবে। লেখার ভাষা এমন হতে হবে যেন সামনে বসে আহ্বান করা হচ্ছে।

পাঠকের মনস্তত্ত্ব অনুধাবন করুন

মনস্তত্ত্ব অনুধাবন করার কথা শুনেই ভাববেন না যে এর জন্য আপনাকে মনোবিদ হতে হবে কিংবা মনোবিদ্যায় ডিগ্রি নিতে হবে। পাঠক বা ক্রেতার সাধারণ মনস্তত্ত্ব আপনি নিজের মধ্যেই কল্পনা করে নিতে পারেন। নিজেকে ক্রেতা হিসেবে কল্পনা করে ভাবুন মেইলে কোন ধরনের লেখা দেখলে আপনি আকৃষ্ট হবেন এবং পণ্যটি কিনতে যাবেন।

পাঠক বা ক্রেতাকে আকৃষ্ট করার একটি প্রতিষ্ঠিত উপায় হলো আপনার পণ্যের অফারের সীমিত সময়ের কথা পাঠককে মনে করিয়ে দেয়া। এক্ষেত্রে মেইলের সাথে একটি কাউন্টডাউন ঘড়ির ছবি পাঠিয়ে দিলে আরো ভালো। এতো পাঠকের মনে সময় ফুরিয়ে যাচ্ছে এরকম একটি অনুভূতি তৈরি হবে এবং দ্রুত পণ্যটি কিনবার প্রয়োজনীয়তা বোধ করবে। আরো একটি ভালো উপায় হলো পণ্যটি সীমিত স্টক সম্পর্কে এবং এটি যে দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে সে সম্পর্কে পাঠককে জানিয়ে দেয়া।

ছবি বা ইলাস্ট্রেশন প্রেরণ

যোগাযোগের মাধ্যমগুলোর মধ্যে ছবি অত্যন্ত শক্তিশালী একটি মাধ্যম তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কেবল একটি ছবিই বলে দিতে পারে হাজার হাজার শব্দ। তাই মেইলের সাথে ছবি বা ডিজাইনকৃত ইলাস্ট্রেশন প্রেরণ করা অত্যন্ত বুদ্ধিমানের কাজ। এগুলো ক্রেতার আকর্ষণ বহুগুণে বৃদ্ধি করবে নিঃসন্দেহে।

একটি ছবি বা ইলাস্ট্রেশন আপনার মেইলকে আরো আকর্ষণীয় করবে; Image Source: blog.prototypr.to

ফ্রি ফ্রি ফ্রি!

ব্যবসায় লাভ করতে হলে সর্বদা ব্যবসা করা যাবে না। কখনো কখনো সাময়িক ক্ষতি স্বীকার করেও কিছু কাজ করতে হয় যা ব্যবসায়ের জন্য হিতকর। তেমনই একটি কাজ হলো পাঠককে ফ্রিতে কিছু দেওয়া। এক্ষেত্রে নিয়মিত পাঠকদের মধ্য থেকে বাছাই করে কিংবা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে কোনো পণ্য, ডাউনলোড কিংবা কোনো প্রিমিয়াম অনলাইন কনটেন্ট ফ্রিতে দেয়া যেতে পারে। এতে করে পুরনো পাঠকদের আকর্ষণ যেমনি বাড়ে, তেমনি নতুন নতুন পাঠক আকৃষ্ট হয়।

দুটি কিনলে একটি ফ্রি

ইমেইল মার্কেটিংয়ে এ ধরনের প্রক্রিয়া অত্যন্ত কার্যকরী। দুটি পণ্য কিনলে একটি ফ্রি কিংবা একাধিক পণ্য কিনলে একটিতে মূল্যছাড় ক্রেতাদের আকৃষ্ট করে। এ ধরনের ছাড় ক্রেতাদের অধিক পরিমাণ ক্রয় করতেও প্ররোচিত করে। ১টি পণ্য কিনতে বাজারে যাওয়া ক্রেতাও ছাড়ের জন্য একাধিক পণ্য কিনে বাড়ি ফেরেন।

একই রকম পণ্যের প্রচার

ইমেইল মার্কেটিংয়ের আরেকটি সফল ও কার্যকর পদ্ধতি হলো একই রকম পণ্যের প্রচারণা চালানো। ধরুন আপনি ফেসওয়াশের কোনো পণ্যের প্রচারণার জন্য ইমেইল পাঠাচ্ছেন। এক্ষেত্রে কোনো ক্রেতা যদি ফেসওয়াশ ক্রয় করেন, তাহলে তৎক্ষণাৎ তাকে আরেকটি মেইলে আপনার কোম্পানির কোনো ফেস ক্রিম বা লোশনের তথ্য পাঠিয়ে দিতে পারেন। কেননা, ফেসওয়াশ কেনা ক্রেতার একটি লোশন বা ক্রিমের চাহিদা থাকারও ভালো সম্ভাবনা রয়েছে।

সব মিলিয়ে ইমেইল মার্কেটিংয়ে সফল হবার মূল উপজীব্য হলো ধৈর্য। ধৈর্য সহকারে পাঠক কিংবা ক্রেতাদের সাথে যোগাযোগ রেখে চললে এক সময় সফল হবার সম্ভাবনাই বেশি।

ফিচার ছবি- martechtoday.com

Written by MS Islam

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

যেভাবে একটি আদর্শ লিস্ট আর্টিকেল লিখবেন

ঘরে বসে গান শুনুন আর রিভিউ লিখে আয় করুন!