গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে উপার্জনের ১০ কৌশল

গুগল এডসেন্সে অর্থ উপার্জন করা যায় এই গুঞ্জন শুনে আসছেন অনেকদিন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কীভাবে?

গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে অনেকেই উপার্জন করছেন ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে,Image source: data:image/jpeg;base

গুগল এডসেন্স মূলত হচ্ছে একটি এডভার্টাইজিং প্রোগ্রাম। এই প্রোগ্রাম আপনার ওয়েবসাইট,ব্লগ, ইউটিউব ভিডিওতে বিজ্ঞাপন চালানোর সুযোগ দেয়। যখনই কোনো ভিউয়ার এই এড-এ ক্লিক করেন, তার বিনিময় সাইট, ব্লগ বা ভিডিওদাতা পাবেন অর্থ। যেসব ব্যবসায়ী বা কোম্পানী গুগল এডওয়ার্ড নামের প্রোগ্রামটি ব্যবহার করেন, তাদের ব্যবসার বিজ্ঞাপনগুলোই মূলত আপনি আপনার সাইট বা ব্লগে যুক্ত করতে পারেন বিশেষ এডসেন্স কোড ব্যবহার করে। নতুন ওয়েবসাইট বা ব্লগার বা ভি-লগারদের জন্য গুগুল এডসেন্স হয়ে উঠছে রাতারাতি অর্থ উপার্জনের একটি মাধ্যম। আর তাই এর জনপ্রিয়তার গুঞ্জনও এত বেশি।

গুগল এডসেন্সের জনপ্রিয়তার একটি কারণ এর সহজ শর্ত ও সুবিধাসমূহ। আপনি ফ্রিতেই জয়েন করতে পারবেন গুগল এডসেন্সে। আপনার সাইট,ব্লগ বা পেইজ একদম নতুন হলেও সমস্যা নেই; আপনি গুগল এডসেন্স ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত হিসেবে বিবেচিত হবেন। অনেক ধরনের এডসেন্স বিজ্ঞাপন থেকে আপনার সাইটের ভাবনা ও রূপ অনুযায়ী সাজিয়ে নেওয়ার সুযোগও আপনি পাচ্ছেন।

১০০ ডলারের আয়সীমা ছুঁলেই গুগল আপনাকে মাসিকভাবে আপনার অর্থ সরাসরি ডিপোজিট করে দিবে। একই এডসেন্স একাউন্ট থেকে একাধিক ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন যুক্ত করার সুবিধাও থাকে। মোবাইল বা আরএসএস ফিডেও এই বিজ্ঞাপনগুলো আপনি যুক্ত করতে পারবেন। যদিও ইউটিউবে এডসেন্সে বিজ্ঞাপন চালানোর জন্য আপনার চ্যানেলে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার ও ৪০০০ ঘন্টার ভিউটাইম থাকতে হবে।

গুগল এডসেন্সে কোনো এড থেকে কিরকম আয় হচ্ছে তার চার্ট ও দেখতে পাবেন, Image source: encrypted-tbn0.gstatic.com

এডসেন্স এর সুবিধাগুলো শুনে খুব সহজ ও ছেলেখেলা মনে হলেও মনে রাখা জরুরী এটা তাড়াতাড়ি ধনী হওয়ার বা বসে বসে অর্থ উপার্জনের কোনো প্রোগ্রাম নয়। গুগলের বেশ কিছু নীতিমালা ও শর্ত রয়েছে যেগুলো না মানলে সাথে সাথেই আপনার একাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হবে। আর অনেকেই এই শর্তগুলোই অনুসরণ করতে ভুলে যান। তাছাড়া এটা ভুলে গেলেও চলবেনা, ভিউয়ার যখন বিজ্ঞাপনে ক্লিক করছে তখন আপনি টাকা পাচ্ছেন ঠিকই, সেই সাথে ভিউয়ার আপনার সাইটটিও ছেড়ে যাচ্ছে।

আপনি তখন মূলত আপনার ব্যবসা বা সাইটের ভিউয়ারও হারাচ্ছেন। এসব, নিয়ম-কানুন, শর্ত, সুবিধা-অসুবিধারও মাঝে আপনি এডসেন্স ব্যবহার করে কীভাবে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন তার জন্য আছে ১০টি কৌশল।

. গুগলের শর্তসমূহ পড়ুন এবং অনুসরণ করুন

এডসেন্স ব্যবহার করতে ওয়েবমাস্টারদের অবশ্যই গুগলস ওয়েবমাস্টারস পলিসি এবং এডসেন্স প্রোগ্রাম পলিসি উভয়ই অনুসরণ করতে হবে ও খেয়াল রাখতে হবে। নয়ত একাউন্টটি যেকোনো সময় চিরতরে বন্ধ হয় যাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।

. বিজ্ঞাপনগুলোতে ক্লিক করা থেকে বা কাউকে করতে অনুরোধ করা থেকে বিরত থাকুন

ক্লিকের জন্য কোনো প্রণোদনা দেওয়া বা পে-পার ক্লিক এর মত স্পেস কেনা থেকে বিরত থাকুন। এমন যেকোনো প্রোগ্রাম ব্যবহার করা যা ট্রাফিক বা ভিউয়ারকে এডসেন্স পেইজে নিয়ে যাবে, গুগলের শর্তাবলীর ঘোর বিরুদ্ধে। আর গুগল এসব নিয়মের ব্যাপারে অনেক কঠোরও। তাই এই বিষয়ে সচেতন থাকুন।

. নিজের সাইটের বিষয়বস্তুকে আরও আকর্ষনীয় করুন

অর্থ উপার্জনই হোক আপনার উদ্দেশ্য, কিন্তু আপনার পেইজের কন্টেন্ট ও যেন ভিউ পাওয়ার মতো বা টার্গেট মার্কেটকে আকর্ষণ করার মতো হয়। এডসেন্স ব্যবহার করেই হোক আর সাইটের ভিউ থেকেই হোক, আপনি উভয়ভাবেই অর্থ উপার্জনের সুযোগ এক্ষেত্রে তৈরী করছেন নিজের জন্য।

৪. সৎ, ট্র্যাফিক তৈরীর ওয়েবসাইট মার্কেটিং কৌশল অবলম্বন করুন

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং আর্টিকেল মার্কেটিং ব্যবহার করে কোনো নিয়ম না ভেঙেই আপনি আপনার সাইটের ট্র্যাফিক বাড়াতে পারেন।

৫. আপনার সাইটটি যেন মোবাইলের জন্যও অপটিমাইজ করা থাকে তা নিশ্চিত করুন

মনে রাখতে হবে এখন পিসি ব্যবহারকারীর চেয়ে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা অনেক বেশি। তাই আপনার সাইটের বিজ্ঞাপনগুলো যেন বেশি মানুষ দেখতে পারে এবং মোবাইল থেকেও দেখতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। এক্ষেত্রে রেস্পনসিভ বিজ্ঞাপন ব্যবহার করলে যেসব মোবাইল আপনার সাইট দেখছে তাদের জন্য পরিমার্জিত ও মোবাইলে দেখার মতো বিজ্ঞাপন পাঠাতে পারে গুগল।

৬. ফোল্ডের উপরের অংশে বিজ্ঞাপন রাখুন

পেজের আপার ফোল্ডে এড প্লেস করলে নজরে পড়ে সহজেই, Image source: data:image/jpeg;base

পেইজের উপরের অর্ধেকের যেকোনো খানে বিজ্ঞাপন রাখলে ভিউয়ার স্ক্রল করা ছাড়াই বিজ্ঞাপনটি দেখতে পাবেন।

৭. ইন-কন্টেন্ট বিজ্ঞাপন ব্যবহার করুন দৃশ্যমানতা বাড়াতে

আপনার আর্টিকেল বা কন্টেন্টের ভেতরেই বিজ্ঞাপন ব্যবহার করলে ভিউয়ার পড়তে পড়তেই বিজ্ঞাপনটি দেখতে পাবেন এবং ক্লিক পাওয়ার সম্ভাবনাও বাড়বে।

গুগল কর্তৃপক্ষ প্রায়ই আপনার ভুলগুলো নিয়ে মেইল পাঠাবে, Image source: encrypted-tbn0.gstatic.com

৮. গুগলের ইমেইলগুলো নিয়মিত পড়ুন

গুগলের যদি আপনার সাইটের কোনো কাজ বা বিজ্ঞাপন দেওয়ার পদ্ধতি ঠিক না মনে হয় তবে আপনাকে গুগলে নোটিশ দিয়ে জানাবে। যেগুলো নিয়মিত সচেতনভাবে দেখে সমাধান না করলে একাউন্ট বন্ধ হয় যেতে পারে।

৯. বিজ্ঞাপন দিতে প্লেসমেন্ট টার্গেটিং ব্যবহার করুন

এভাবে বিজ্ঞাপনদাতা নিজেই ঠিক করে দিতে পারবেন কোথায় কখন বিজ্ঞাপনটি দেখা যেবে। এতে ভিউ পাওয়ার সম্ভাবনাও বাড়ে।

১০. কাস্টম চ্যানেল সেটআপ করুন

কাস্টম ভ্যানেল সেটআপ দিলে আপনি নিজেই ধারণা নিতে পারবেন সাইট থেকে আয়ের জন্য কোনো বিষয় বা বিজ্ঞাপনটি বেশি কাজ করছে বা করছেনা।

ফিচার ছবি- semrush.com

Written by Faria Abdullah

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

যে ৭টি বিষয় ফ্রিল্যান্সারদের না জানলেই নয়

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ে যে ১০টি ভুল এড়িয়ে চলবেন